নীলমাতম | শুভ্র সরকার

🌿

ফুটেছে আলোর ট্রিগার

একটা নশ্বরতার পাশে যে বিরহ

জমা আছে তাতে আজ মৃত্যুন্মুখ

ধরে নাও এবারের গ্রীষ্মকাল

 

এ হাওয়ার সরণিতে মরণবীজ

যেন সত্য বিদ্ধ তীর

                      তবু প্রণয়ের এ পৃথিবী

নিস্তরঙ্গ মানুষেরা কেবল একা বয়

খসে পড়ে বিদীর্ণ দিন থেকে

একেকটা মালুমকাঠ

বলো এমন পরাবৃত্তে

সংকেত আসে কার!

 

যেন দিন সুন্দর, সূর্য এক ড্রিলমেশিন

ফুটো করা যার স্বভাব

ঐতো আকাশ, একদিন রোদঘন দুপুর

তবে কোথায়?

মানুষের মুছে যাওয়া নিয়ে

লুকিয়ে রাখছে দারুণ জেগে ওঠার গান

 

এমতবস্থায় যতদূর দেখছি

বারান্দার গ্রীলে রেখে হাত

যেন জিরাফের উচ্চতা নিয়ে শহর

তারও অধিক উড্ডয়নরত পাখিরা মুখোমুখি নয়

যখন জাহাজের মতো সঞ্চিত মেঘ

 

শুনেছি উদভ্রান্ত বনমর্মর তাতে চিরঋতু আজ

হয়তো প্রবুদ্ধ মোলায়েমে

গজানো পাতার ঠোঁট

ফুলেরা ঝুকে আছে কেমন-

 

পথে পথে লোনলি, স্থিরতম স্কুল

পাশে তার ডাষ্টবিন আবর্জনা বিষয়ক

 

মুঠি থেকে এ ভয় যেন স্তিমিত

শুয়ে আছে আমারি হৃদয়ে

হৃদয়ে এক পাগলা তবুও

তিনপাতা বেষ্টিত বেলাপাতার সান্নিধ্য

নিয়ে থাকে-

 

সেখানে শোনে কলরব থেকে থেকে

যেখানে এক ভগবতীর ত্রিনয়না গাঁথা আছে

শিবের ত্রিশূলের পাশে

সেতো- সম্পর্ক, বরফ গলা থেকে জল

নীল জড়িয়ে পড়ছে আকাশে

 

পয়মন্ত মাছিরা তখনো

থেতলানো তরমুজে আরে কী হর্ষময়

রোদে মেঘস্তূপে পুড়ছে

 

ঢুকে পড়ছে পাখি এক চড়ঁই

ভেন্টিলেটরের শুষ্কখড়ে

ওইটুকু গহিনে বলো কতটুকু আর ছায়া জমে

ওগো চৈত্রের দুপুরমণি

ফেটে পড়ছে অনূঢ়া ফুলে

 

কখনো বাতাস তীব্র হয়ে ছুটছে

ফণাতোলা মোরগফুলে ভীষণ

মাস্তানি করবে বলে-

 

হায়, আকাশে উড়ছে না বিমান

ঠিকঠাক যত মেঘ 

দুলে ওঠছে আকাশ

 

যেথা পুলিশ লাইন, নারিকেল গাছ

প্রাণায়ামে রাস্তার এপাশ ওপাশ

যদিও ভেবেছি-

প্যারেডে মেলে ধরা হাত

সৈনিকের, এক বুক এক মাঠ

 

কোথাও নিরর্থের বাস টার্মিনাল

মোটর গ্যারজের ওয়েল্ডিং এর ঝালাই হতে

অক্সি অ্যাসিটিলিন গ্যাস

কার পায়ের কাছে এসে ছলকে যায়

 

একা ছলছল চোখ, নয় ধীর

একটা বারান্দার রেলিঙ ছুঁয়ে

মনযোগ ধরে আছিতো কতকিছুর

 

যেন কখন চাঁদ ঘিরে ফুলের আভা

সন্ধ্যাপ্রবাহ  ছিঁড়ে যায়!

একা এক মানুষ

সত্যিই কী ঘরহীন ঘর

অপেক্ষাতুর আমার ভেতর

 

জানি, মৃত্যু এক নিঠুর সমীকরণ

ব্যাকুলতার খরতাপ, যখন অনুভব খুলে দেখি

তবুও ডাকছে স্থির অচিন

মসজিদের কোণায় বসা খাদেম

 

অনুধ্যান

Leave a Reply

Next Post

জলসায়রের পলি | মামুন খান

Sat May 23 , 2020
🌿নেত্রকোণা, সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ, কিশোরগঞ্জের নিম্নভূমি নিয়ে যে ভাটি অঞ্চল গঠিত তা এক সময় জলসায়র পরগনা নামে পরিচিত ছিল। এই পরগনার রাজধানী ছিল নেত্রকোণার বর্তমান খালিয়াজুড়ি অঞ্চল।   বাংলার বহু লোককবি, বাউল ও মরমী সাধক এই অঞ্চলে  জন্মেছেন। মহুয়া, মলুয়া, চন্দ্রাবতীর পীঠস্থান, ভিন্নমাত্রার  শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতির লীলাভূমি সমৃদ্ধ অঞ্চল নেত্রকোণা। এই নেত্রকোণার মদন […]
Shares