নতুন কবিতাগুচ্ছ | মাহবুব কবির

কবি মাহবুব কবিরের জন্মদিনে আবার তার কবিতা পড়িকবিকে ভালোবাসি, কবিতাকে ভালোবাসি। 

নতুন কবিতাগুচ্ছ  মাহবুব কবির

 🌱

মানুষ

মানুষ আবার হলো গুহাবাসী আজ

শূন্যতায় রাস্তায় কুকুরগুলি কাঁদছে

মানুষ আবার হলো গুহাবাসী আজ

শূন্যতায় উদ্যানে বৃক্ষ-ফুল-ফল কাঁদছে

মানুষ আবার হলো গুহাবাসী আজ

শূন্যতায় উড়ে উড়ে পাখিরা কাঁদছে

ফাঁকা রাস্তা কাঁদছে

রেললাইন কাঁদছে

শূন্যতা কাঁদছে

মানুষ, নদীর কাছে ক্ষমা চাও

মানুষ, বৃক্ষের কাছে ক্ষমা চাও

মানুষ, পাখির কাছে ক্ষমা চাও

সমুদ্রের কাছে ক্ষমা চাও

পাহাড়ের কাছে ক্ষমা চাও

কুকুরের কাছে ক্ষমা চাও

হে মানুষ, নিজের চোখের দিকে তাকাও

 

এসো

আমি আমার পোশাক খেয়ে ফেলেছি,

পরিচয় খেয়ে ফেলেছি।

পোশাক একটা ট্যাবু, পরিচয় একটা ট্যাবু,

আমি ট্যাবু খেয়ে ফেলেছি।

এসো হা্ওয়া, তোমাকে উড়িয়ে দিই।

এসো জল, তোমাকে ডুবিয়ে দিই।

এসো অগ্নি, তোমাকে পুড়িয়ে দিই।

 

প্রতিশিল্প

উপরে উঠার সিঁড়ি পেয়ে গেছি দুলাভাই-

মড়ক লেগেছে দেশে, সারা দুনিয়ায়,

বুবুজান বানায় পিপিই, আমি কফিন বানাই-

এইবার লালে লাল হয়ে যাব মৃত্যু-ব্যবসায়।

সব মরে সাফ হয়ে যাক, এই মওকা-

আমাদের চাই টাকা, টাকা আর টাকা।

বেকুবেরা ফান্দে পড়ে কান্দে-

শেষে এই মৃত্যুপুরী ছেড়ে মোরা চলে যাব চান্দে।

 

 

এক পৃথিবী

কারাগার হয়ে গেছে নিজগৃহ

পৃথিবীর সব মানুষ বন্দি,

স্বশ্রম দণ্ড সব কয়েদির-

মনে রেখো এই সমতা-সন্ধি।

মনে রেখো শুধু সূর্য সবার,

আকাশ-বাতাস একান্নবর্তী।

বাঁচি-মরি, রেখে গেলাম স্বপ্ন-

এক পৃথিবীর একটি মূর্তি।

 

 

মৃত্যু

(আবুল হাসানকে স্মরণে রেখে)

 

মৃত্যু আমাকে নেবে,

কবর আমাকে নেবে না।

স্বজন পালাবে-

রাস্তায় পড়ে থাকবে লাশ,

জঙ্গলে পড়ে থাকবে লাশ,

নদীতে ভাসবে লাশ,

রাষ্ট্র আমাকে গুনবে না।

শুধু প্রকৃতি আমাকে নেবে-

হ্যাঁ, শুধু প্রকৃতি…।

 

ইউক্যালিপটাসের গান

উদ্যানে আর আসে না তো কেউ, হায়-

কই গেল সব; কই তৃণভোজী কবি!

আমার পায়ের কাছে বসে শুনাত সে-

গহীন-নিগূঢ় গান-শ্লোক পৃথিবীর।

অতি উঁচু আমি; তবু তার প্রেমে পড়ি।

আমার মসৃণ ঊরু চুমা পেত তার,

আমার শেকড় কেঁপে কেঁপে ভিজে যেত।

বসন্ত যায়, সে কেন আসে না আর।

 

কিছু দাও

জীবনে অনেক কবিতা লিখেছি-

বিনিময়ে চাইনি কিছুই।

এবার তোমার কাছে হাত পেতেছি, হে কবিতা-

চাল-ডাল দাও, সবজি দাও, তেল দাও, লবণ দাও।

ঘরে ঘরে না-খেয়ে আমার মানুষ কাঁদছে।

পথের মোড়ে মোড়ে খাবারের জন্য ভিড় করছে বুভুক্ষু মানুষ।

অনাহারে অনাহারে মরছে মানুষ, আত্মহত্যা করছে।

হে কবিতা-

সারা জীবন তোমাকে অনেক লালন করেছি।

এবার আমার মানুষের জন্য কিছু দাও।

মানুষ না-খেয়ে মরলে তোমার বদনাম হবে, কলঙ্ক হবে।

তোমার কাছে হাত পেতেছি, হে কবিতা-

কিছু দাও, কিছু দাও।

 

 

স্রোতধারা

(জুয়েল মাজহার, সাইদ উজ্জ্বলকে)

দাদা ডাকতেন- মাইজি।

আব্বা ডাকতেন- মায়া।

আমি ডাকতাম- আম্মা।

কন্যা ডাকে- মা।

নাতি ডাকে- মাম।

পুতি ডাকবে কী?

আর ক’টা দিন সবুর করো

রসুন বুনেছি।

 

 

তোতা পাখি ময়না

মুই তোতা পাখি ময়না

দুধ-কলা খাই।

কতক শেখানো বুলি আওড়াই

কুনু মিথ্যা বলি না।

ফোন দিয়ে দিয়ে যতই চেঁচাও-

করোনা করোনা!

কুনু লাভ নাই।

মুই তোতা পাখি ময়না।

 

 

 

 

অনুধ্যান

Leave a Reply

Next Post

পৃথিবীটা কাঁধে নিয়ে হাঁটছেন মাহবুব কবির | আবদুর রাজ্জাক 

Tue Jun 2 , 2020
পৃথিবীটা কাঁধে নিয়ে হাঁটছেন মাহবুব কবির | আবদুর রাজ্জাক  🌱 কবি মাহবুব কবিরকে ভালোবাসি। তিনি খুব স্টাইলিস্ট মানুষ।  ছোট বেলা থেকেই দেখছি,  উনার হাঁটার একটা নিজস্বতা রয়েছে।   প্রথম দেখাতেই স্পষ্ট হয় উনার স্বাতন্ত্র্য। মনে হয়  মানুষটা ডান দিকে একটু কাত হয়ে  পৃথিবীর সব ওজন কাঁধে নিয়ে যেন হেঁটে চলেছেন। […]
Shares