ডরোথি পার্কার | মুম রহমান

ডরোথি পার্কার | মুম রহমান

🌱

মার্কিন কবি, কথাকার, সমালোচক ডরোথি পার্কার (১৮৯৩-১৯৬৭) যথার্থ অর্থেই বহুমূখী প্রতিভার অধিকারী ছিলেন। বৈরী পরিবেশ আর অসুখি শৈশব পেরিয়ে তিনি সফল হয়েছিলেন। দ্য নিউ ইয়র্কারের মতো পত্রিকা নিয়মিত লিখতে তিনি। হলিউডে চিত্রনাট্য লিখেছেন। দুইবার অস্কার নমিনেশনও পেয়েছিলেন। কিন্তু কমিউনিজমের সঙ্গে সংযুক্তি থাকার অভিযোগে তাকে হলিউডে কালো তালিকাভূক্ত করা হয়েছিলো। কবিতার পাশাপাশি তিনি প্রহসন, সাহিত্য সমালোচনা এবং রঙ্গব্যঙ্গও রচনা করেছেন।

একটি অতি ক্ষুদ্র গান

একদা, যখন আমি নবীন আর সাচ্চা ছিলাম,
কেউ একজন আমাকে রেখে গেলো বিষন্ন করেÑ
ভেঙে দিলো আমার পলকা হৃদয়কে দুইভাগে
আর সে ছিলো বড় ক্ষতিকর।

ভালোবাসা অভাগাদের জন্যে,
ভালোবাসা কিছুই নয় কেবল অভিশাপ।
একদা একটা হৃদয় ছিলো আমি ভেঙেছিলাম;
আর সেটাই, আমার মনে হয়, সবচেয়ে মন্দ ছিলো।

জীবন বেত্তান্ত

ক্ষুর তোমাকে আহত করে;
নদীরা স্যাঁতস্যাঁতে হয়;
এসিড কলঙ্কিত করে;
আর নেশারা খিঁচুনি দেয়।
বন্দুক আইনসঙ্গত নয়;
ফাঁসির দড়ি এগিয়ে আসে;
গ্যাসের গন্ধ ভয়াবহ হয়;
তবু বাঁচতে হবে ভালোবেসে।

গল্প

‘আর যদি সে দূরে সরে যায়,’ ও বললো,
‘বেশ স্বস্তিদায়ক, যদি আমাকে জিজ্ঞেস করো।
আমি শুয়ে শুয়ে রাত জাগবো না
আর কারো জন্যে কাঁদবো না।
ওর চেয়েও ভালো বেটাছেলে আছে বহু!
আমি বরং ফিতাঅলা চটি জোড়া বেঁধে নেবো
দিন ফুরানো নাগাদ এক-নৃত্য।
আমি বরং সে সরে যাওয়ায় ভালোই আছি!
আর যদি সে কখনো ফিরে না আসে,’ ও বললো,
‘তাতে আমার কীইবা আসে যায়?
আমি তাকে ফিরিয়ে আনবো না!’
আমি আশা করি
তার মা সাবান দিয়ে ওই মুখটি ধুঁইয়ে দেবে।

🔅🔅🔅🔅🔅🔅

অনুধ্যান

Leave a Reply

Next Post

ই ই কামিংস | মুম রহমান

Tue Sep 22 , 2020
ই ই কামিংস | মুম রহমান 🌱 এডয়ার্ড এস্টলিন কামিংস (১৮৯৪ – ১৯৬২) নিজের নাম লিখতেন ই. ই. কামিংস নামে। নামের অদ্যাক্ষরগুলো ছোট হাতের হতো। তাঁর কবিতার শুরুর শব্দেরও ছোট হাতের অক্ষর ব্যবহৃত হতো। উল্লেখ্য, সচারচর কবিতার প্রতি লাইনের শুরুর প্রথম শব্দের প্রথম অক্ষর বরাবরই বড় হাতের হতো। মার্কিণ কবি, […]
Shares